বিনিয়োগ ছাড়াই সেরা ১০টি ব্যবসা আইডিয়া

টাকা বিনিয়োগ ছাড়াই ব্যবসা বা অর্থ উপার্জন! ব্যবপারটা কেমন জানি বিশ্বাস যোগ্য মনে হলো না। আমরা সবাই জানি যেকোন ব্যবসা শুরু করতে হলে কমবেশি বিনিয়োগ বা ইনভেস্টমেন্ট করতেই হবে। কিন্তু টাকা ছাড়া ব্যবসা কি করে সম্ভব? হ্যাঁ সম্ভব! আপনি টাকা বিনিয়োগ ছাড়াই ব্যবসা করে লাভবান হতে পারবের। আজ এমন ১০টি ব্যবসা আইডিয়া শিয়ার করব আপনাদের সাথে যা আপনি কখনও চিন্তাও করেন নি। এরকম পোস্ট পেতে বঙ্গভাষা ওয়েবসাইটের পাশে থাকবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

 

আপনার অতিরিক্ত রুম ভাড়ায় দিন

আপনার বাড়ি যদি শহর অঞ্চলে হয়ে থাকে অথবা এমন পরিবেশে যেখানে ভাড়া দেওয়া যাবে। তাহলে আপনার ঘরের অতিরিক্ত রুম গুলো ভাড়া দিয়ে আয় করতে পারবেন। এছাড়াও মার্কেটের পাশে না মধ্যে বাসা হলে সেখান থেকে একটি বা দুটি রুম ভাড়ার জন্য ছেড়ে দিন। তাহলেও আপনি বিনিয়োগ ছাড়া ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

 

আপনার ইউটিউব চ্যানাল শুরু করুন

টাকা বিনিয়োগ ছাড়াই ইনকাম করার এক অসাধারণ উপায় হলো নিজের ইউটিউব চ্যানাল খোলা। আপনার হাতে যদি একটা স্মার্টফোন থাকে তাহলে আজ থেকেই শুরু করুন ইউটিউবিং। বর্তমান সময়ে একজন বাংলাদেশি ইউটিউবার সর্বনিম্ন ১০ হাজার থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করছে ইউটিউব থেকে। 

যদিও এটি সময়সাপেক্ষ কিন্তু একবার এই ব্যবসায় সফল হতে পারলে সারা জীবন কাজ করা ছাড়াই আয় করে যেতে পারবেন। এমনকি আপনার মৃত্যুর পরেও আপনার ওয়ারিশরা ইউটিউব থেকে টাকা পেতে থাকবে। ইউটিউবিং করে আপনি অনেকভাবে আয় করতে পারবেন। যেমন: 

  • অ্যাডসেন্স
  • প্রমোশন
  • রেফার
  • অ্যাফিলিয়েটিং
  • অন্যান্য

তবে তারা জন্য প্রয়োজন একটি সঠিক বিষয় নির্বাচন। আপনি যেই বিষয়ে পারদর্শী সেই বিষয়ে ইউটিউবিং শুরু করুন। আপনি যদি একজন গৃহিণী হয়ে থাকেন তাহলে রান্নাবান্নার ভিডিও তৈরি করতে পারেন। একজন কৃষক হলে চাষের ভিডিও একজন শিক্ষক হলে ক্লাসের ভিডিও বানাতে পারেন। মোট কথা আপনার পছন্দের বিষয়ের ওপর ভিডিও তৈরি করে আয় করতে পারবেন। 

আরোও পড়ুনঃ সেরা ১০টি AI সম্পর্কে জানুন। বুদ্ধি থাকলে এদের দিয়েও আয় করতে পারবেন

আপনার যদি কোন দক্ষতা না থাকে তাহলে অন্যদের ভিডিও দেখে দেখে ঐরকম ভিডিও তৈরি করে আয় করতে পারবেন। তবে যেকোন বিষয়ের ওপর কাজ করার পূর্বে সেই সম্পর্কে যথেষ্ঠ ধারণা নিয়ে নিন।

 

আপনার গাড়ি ভাড়ায় দিন

আপনার বাসায় যদি যেকোন ধরনের যানবাহন যেমন: সাইকেল, বাইক, ভ্যান, সিএনজি, মাইক্রো, কার থাকে। তাহলে সেগুলোকে ভাড়ায় দিয়ে আয় করতে পারেন। কিন্তু আপনার যদি ব্যক্তিগত কোন যানবাহন না থাকে। তাহলে আরেকটি উপায়ে আয় করতে পারেন। সেটা হলে: খোঁজ খবর নিন আপনার কোন বন্ধুর যানবাহন আছে কিনা। তাহলে তাকে বুঝিয়ে কম টাকায় তারা যানবাহন ভাড়া নিয়ে বেশি টাকায় আবার অন্যজনকে ভাড়া দিয়েও আয় করতে পারেন। 

পণ্য বিক্রির ব্যবসা

পণ্য বিক্রির ব্যবসা

বাসার মহিলারা কমবেশি বিভিন্ন বিষয়ে পারদর্শী হয়ে থাকে যেমন: পিঠা তৈরি, নকশি কাঁথা তৈরি, নকশি পাটি, হাতপাখা, টুপি বা ভালো রান্নাবান্না। আপনি চাইলে তাদের সাহায্যে বিভিন্ন পণ্য তৈরি করে নিকটস্থ্য মার্কেটে। প্রতিবেশি বাড়িতে, বন্ধুবান্ধব বা ফেসবুকে স্থানীয় লোকজনের কাছে বিক্রি করে আয় করতে পারবেন। 

 

ডিজাইন বিক্রির ব্যবসা

আপনি যদি ভালো ডিজাইন তৈরি করতে পারেন। তাহলে বিনিয়োগ ছাড়ায় আপনার ডিজাইন গুলো বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে বিক্রি করে আয় করতে পারেন। যেমন: Creative Market, 99designs, ThemeForest ইত্যাদি। এসব মার্কেটপ্লেসে ডিজাইনের অনেক চাহিদা রয়েছে। আপনি যেকোন ধরনের ডিজাইন বিক্রি করে আয় করতে পারবেন। যেমন: থিম, লোগো, ওয়েবসাইট, পোশাক, অ্যাপ্লিকেশন, ফ্রন্ট, ব্যানার ইত্যাদি। বিনিয়োগ ছাড়া আয় করার দারুন একটি ব্যবসা। 

 

অন্যের পন্য বিক্রির ব্যবসা

আপনি যদি একটু অনুসন্ধান করেন তাহলে দেখতে পাবেন। আপনার আশপাশের এমন অনেক পরিবার রয়েছে যাদের বাড়িতে বিভিন্ন ধরনের অতিরিক্ত জিনিস পড়ে রয়েছে যেমন: টিভি, মোবাইল, এসি, ফ্রিজ, যানবাহন, ঘড়ি বা অন্য মূলবান জিনিস অথবা বিক্রি করার মতো কোন প্রাণী যেমন: গরু, ছাগল, হাঁস, মুরগী, ভেড়া, মহিষ ইত্যাদি। 

আপনি চাইলে কম টাকায় সেগুলো ক্রয় করে অন্যদের কাছে বেশি মূল্যে বিক্রি করতে পারেন। অনেকে বলবেন এখানে তো পুঁজি বা বিনিয়োগ করতে হবে। তার ওপর বেচা কিনার চিন্তা। তাদের জন্য বলব। আপনি ছোট্ট একটি টিপস ফলো করুন। তাহলে বিনিয়োগ ছাড়া ব্যবসা করতে পারবেন। টিপসটি হলো। ধরুন আপনার চাচীর ১ টি পুরাতন মোবাইল রয়েছে। আপনি চাচীকে বুঝে বললেন বিক্রি করে পেলতে। এখন চাচী বলল এটার দাম ৬ হাজার টাকা। আপনি আপনার চাচীকে বললেন আমি অন্যসময় আসব। 

এটা বলে চলে আসলেন। তারপর খবর নিয়ে দেখুন কেউ মোবাইল কিনবে কিনা। যদি কাউকে পেয়ে যান তাহলে বলবেন আপনার একটি মোবাইল আছে ৭ হাজার টাকা দাম। তারপর তাকে আপনার চাচী থেকে মোবাইলটি এনে দেখান। তার পছন্দ হলে সে কিনে নিবে। তাহলে এখানে আপনার ১ হাজার টাকা প্রপিট বা লাভ থেকে গেলো। একইভাবে পাড়া প্রতিবেশিদের যেকোন পণ্যের দালালি করে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। 

 

বাসা বাড়ি পরিষ্কার ব্যবসা

আপনার বাসা যদি শহর অঞ্চলে হয়ে থাকে তাহলে কাজটি আপনার জন্য। বর্তমান সময়ে মানুষ অর্থের পিছনে খুব বেশি ছুঁটছে। যার কারণে তারা সব সময় ব্যস্থ থাকে। বাসাবাড়ি পরিষ্কার করার সময় পায় না। আপনি চাইলে এমন ব্যক্তিদের সাথে কথা বলে মাসে একবার তাদের বাসাবাড়ি, অফিস, বাজার বা দোকানপাট পরিষ্কার করে আয় করতে পারেন। 

এছাড়াও ময়লা রাস্তার পাশে পানির ব্যবস্থা করে যানবাহন পরিষ্কার করে আয় করতে পারেন। এটি গ্রাম কিংবা শহর সব জায়গায় চলবে। বিশেষ করে বৃষ্টির সময় রাস্তাঘাটে খুব বেশি কাদা পানি থাকে। যা খুবদ্রুত যানবাহন নষ্ট করে দেয়। আপনি চাইলে সেগুলো পরিষ্কার করার সার্ভিস দিয়ে ভালো অর্থ আয় করতে পারেন। 

মাছ চাষ বঙ্গভাষা

মাছ ও শাক-সবজি বিক্রির ব্যবসা

আপনার নিজেস্ব পুকুর বা গভীর জমি থাকলে সেখানে মাছ চাষ করে আয় করতে পারেন। যাদের মাছ কিনার পুঁজি নেই। তারা নদী, খাল-বিল, ডোবা, খেত থেকে মাছ ধরে পুকুরে বা জমিতে মাছের চাষ করতে পারেন। আর যাদের জমি বা পুকুর নেই। তারা রাস্তার পাশের সরকারি খাল বা গভীর জমিতে বেড়া বা জাল দিয়ে দুই দিক বা চতুর দিক বদ্ধ করে সেখানে মাছের চাষ শুরু করতে পারেন। 

এছাড়াও উঁচু জমি বা অন্যের ফেলে রাখা জমি, রাস্তার পাশে বিভিন্ন ধরনে শাক-সবজি চাষ করে আয় করতে পারেন। যাদের চারা গাছ বা সবজির বীজ কিনার মতো অর্থ নেই। তারা চাইলে ধারে কিছু টাকা নিয়ে অথবা নিকটস্থ্য তরকারি মার্কেটের আশপাশে খুঁজে দেখতে পারেন। অনেক সময় সবজি বিক্রেতাদের বিভিন্ন পণ্য পঁচে বা পেঁকে গেলে তারা নোংরায় পেলে দেয়। যেখানে কিছুদিন পরপর মূল্যবান চারা গাছ জন্মায়। যেগুলো সংগ্রহ করে এনে পরিচর্যা করে আয় করতে পারবেন।

 

ডাল-পালা বিক্রির ব্যবসা 

অনেক সময় ঝড় বা প্রচন্ড বাতাসে গাছের শুকনো ডালপালা ভেঙ্গে পড়ে। যেগুলো কুড়িয়ে এনে বিক্রি করে আয় করতে পারেন। অথবা খেত বা বিল থেকে শাক কুড়িয়ে এনে বিক্রি করে আয় করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে অন্যের ক্ষতি না করে সৎভাবে কাজ করুন। 

নার্সারি তৈরির ব্যবসা

নার্সারি তৈরির ব্যবসা

বিনিয়োগ ছাড়া নার্সারি তৈরির ব্যবসা। এই ব্যবসাটি গ্রাম অঞ্চলের মানুষদের জন্য সুবিধাজনক। অনেক সময় রাস্তার পাশে বিভিন্ন ধরনের চারা গাছ পাওয়া যায়। যেমন: আম, জাম, লিছু, পেয়ারা, বরই, কাট গাছ বা অন্যযেকোন মূল্যবান গাছপালা। আপনি চাইলে যত্ন সহকারে সেসব চারা গাছ সংগ্রহ করে। মার্কেট থেকে কুড়িয়ে আনা পলিব্যাগ বা মাটির পাত্রে নাসিং করে। কিছুটা বড় করে সঠিক সময় বিক্রি করে আয় করতে পারেন। বিনিয়োগ ছাড়া এটি একটি সেরা ব্যবসা আইডিয়া। এটা আপনার অর্থের জোগান দেওয়ার পাশাপাশি পরিবেশের জন্যও খুবেশি উপকারে আসবে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *